শুক্রবার, সকাল ৬:৫৭, ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার, ১৬, সেপ্টেম্বর, ২০২২ 110 বার পড়া হয়েছে

বহুরুপী প্রতারকের খপ্পর পড়ে কলেজ শিক্ষক দিশাহারা

শ্যামনগর (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধিঃ

শ্যামনগরের বহুরুপী প্রতারক বাদঘাটা গ্রামর ধ্যানো আব্দুলের ছেলে নুরুল আমিন ও তার স্ত্রী শাহিনার খপ্পর পড়ে সাতক্ষীরা সিটি কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক বিধান চদ্র দাস দিশহারা হয়ে পথেপথে ঘুরছেন। বর্তমান ঐ শিক্ষক মানুষিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে মাঝে মাঝে ভুলভাল বকছেন এবং আত্মহত্যার কথা বলছেন । এসব নানান উপসর্গ দেখা দেওয়ায় ঐ শিক্ষকের শুভাকাঙ্ক্ষী ছাত্ররা তাকে পালাক্রমে পাহারা দিচ্ছে এমন চাঞ্চল্যকর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সিটি কলেজের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেন,বিধান চন্দ্র দাস স্যার সাতক্ষীরা সিটি কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক। তিনি উক্ত প্রতিষ্ঠানের দুর্নীতির শিকার হয়ে ২০১৭ সালে এমপিওভুক্তি থেকে বঞ্চিত হন।এ ঘটনাটি স্যারের ছাত্রী সুমাইয়াতুল কোবরার পিতা নুরুল আমিনের সাথে আলাচনা করলে নুরুল আমিন নিজেকে সরকারের উদ্ধর্তন কর্মকর্তাদের সাথে সুসম্পর্ক আছে বলে দাবি করে স্যারের ছয় মাসের মধ্যে বকেয়া বেতন সহ এমপিওভুক্ত করে দেবেন বলে নিন্ম আদালত ও উচ আদালত মামলা পরিচালনা সহ বিভিন দপ্তর খরচ বাবদ ২০১৭ সালর সেপ্টম্বর মাস হতে ২০১৮ সালের জুন মাস পর্যন্ত সর্বমাট ৭,০৭,০০০/= (সাত লক্ষ সাত হাজার) টাকা স্যারের নিকট থেকে গ্রহণ করেছেন। নুরুল আমিনের কথামত লাখ লাখ টাকা উচ্চ হারে সুদ বিভিন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের নিকট থেকে ঋণ নিয়ে অদ্যাবধি সুদ দিয়ে যাচ্ছেন। বর্তমানে আমাদের শিক্ষক মানবেতর জীবন যাপন করছে। এসব টাকা বিভিন্ন সময়ে ও তারিখে নগদ, মোবাইল বিকাশ ও রকেটে লেনদেন হয়েছিল। লেনদন ব্যবহৃত বিকাশ নং ০১৯১৭-০৬৬৯৯৯ এবং রকেট নং ০১৯১৭-০৬৬৯৯৯-৯। এছাড়া চাকুরী ও লেনদেন সংক্রান্ত বিষয় নুরুল আমিনের নিজের মোবাইল নং ০১৯১৭-০৬৬৯৯৯, তার স্ত্রীর মোবাইল নং ০১৭১৭-৮১০৮৯০ এবং নুরুল আমিনের কন্যা স্যারের ছাত্রী সুমাইয়াতুল কোবরার মোবাইল নং- ০১৯৬৭-৪৭৭০৬৭ এ বিভিন্ন সময়ে যে ফোনালাপ হয়েছিল তার রেকর্ডিং সংরক্ষিত আছে।

প্রতারকের খপ্পরে পড়া ঐ শিক্ষক বর্তমানে মানসিক ভারসাম্যহীন পড়েছেন তার একটি প্রতিবন্ধী বাচ্চাকে অর্থাভাবে সঠিকভাবে চিকিৎসা করতে পারছেন না।প্রতারক নুরুলআমিন এখন স্যারের মোবাইল রিসিভ করেন না। এই প্রতারকের হাত থেকে নিষ্কৃতি পেতে সাতক্ষীরা সিটি কলেজ হিসাববিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীরা জেলা প্রশাসক এবং পুলিশ সুপারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।


ট্যাগস :
নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
সবশেষ নিউজ